ডেস্ক রিপোর্ট; সাতক্ষীরায় এক ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ লাশ পাওয়া গেছে। পুলিশ বলছে তিনি একজন মাদকব্যবসায়ী। মাদক নিয়ে বিরোধের জেরে দুই পক্ষের গোলাগুলিতে তিনি নিহত হয়েছেন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান জানান ভোরে তিনি খবর পান যে সদর উপজেলার কয়ারবিলের ধারে এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে। এ খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

ওসি আরও জানান নিহত ব্যক্তির নাম লিয়াকত হোসেন সরদার (৪৫)। সাতক্ষীরা সদর উপজেলার তলুইগাছা গ্রামে তার বাড়ি। রাতে মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে গোলাগুলির এক পর্যায়ে তিনি গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেছেন। এসময় তার পাশে একটি রিভলবার, দু’রাউন্ড গুলি, একটি হাসুয়া, ৫০ বোতল ফেন্সিডিল ও ২শ’ পিস ইয়াবা পড়ে ছিল।

সদর থানায় তার বিরুদ্ধে মাদক আইনে দশটি মামলা রয়েছে। তবে লিয়াকতের স্ত্রী আকলিমা খাতুন জানান গত ২৪ জুলাই পুলিশ এক কেজি গাঁজাসহ তলুইগাছার খোরশেদসহ দুই ব্যক্তিকে আটক করে। এই মামলায় লিয়াকতকে আসামি করা হয়। তিনি বলেন গ্রেফতারকৃত দু’জন জেলখানায় রয়েছেন।

আকলিমা খাতুন বলেন বুধবার দুপুরে এই মামলা থেকে রক্ষা পেতে লিয়াকত শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত বিপুল নামের একজন স্বাস্থ্যকর্মীর সাথে দেখা করতে যান। তাকে ২০ হাজার টাকা ঘুষও দেন । এ সময় কয়েকজন অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তি এসে তাকে তুলে নিয়ে যায়।

এদিকে সদর উপজেলার কয়ারবিলের বাসিন্দারা জানার বুধবার রাতে তারা দু’দল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে গোলাগুলির খবর শুনেছেন । পরে তারা জানতে পারেন এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন লিয়াকত হোসেন । রাতে ওই এলাকায় একটি প্রাইভেট কার ও দু’টি মোটরসাইকেল চলাচল করতে দেখা যায় বলে জানান তারা।